বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০১৯, ১২:৩৮ পূর্বাহ্ন

পাবনা ১ ও ২ আসনে হ্যাটট্রিক করতে চায় নৌকা-পুনরুদ্ধারে মরিয়া ধানের শীষ

পাবনা প্রতিনিধি :

পাবনা-১ ও পাবনা-২ আসনে গত ১০ বছর নেতৃত্ব দিয়েছে আওয়ামী লীগ। দেশব্যাপী উন্নয়নের ক্যারিশমায় এবারো নৌকার পালে সুবাতাস বইছে। তবে আসন পুনরুদ্ধারে মরিয়া বিএনপি নেতৃত্বাধীন ঐক্যফ্রন্ট।

এ দুটি আসনে ২০০৮ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের কাছে বিএনপি জোটের প্রার্থীরা পরাজিত হয়েছিলেন। ২০১৪ সালে নির্বাচনে বিএনপি জোট অংশ না নেওয়ায় আবারো জয়লাভ করে আওয়ামী লীগ। এবার তারা হ্যাটট্রিক জয় প্রত্যাশা করছে।

 পাবনা-১ আসনটি সাথিয়া ও বেড়া উপজেলার একাংশ নিয়ে গঠিত। এ আসনে ভোটার রয়েছে তিন লাখ ৭৭ হাজার।

এ আসনে প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী দুই প্রার্থী হলেন, আওয়ামী লীগের শামসুল হক টুকু ও বিএনপি নেতৃত্বধীন ঐক্যফ্রন্টের আধ্যাপক আবু সাইয়িদ। গণফোরাম নেতা আধ্যাপক আবু সাইয়িদ ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছেন।

২০০৮ সালে নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অ্যাডভোকেট শামসুল হক টুকু জামায়াতের আমীর মতিউর রহমান নিজামীকে পরাজিত করে প্রথম এমপি নির্বাচিত হন।

২০১৪ সালে স্বতন্ত্র প্রার্থী অধ্যাপক আবু সাইয়িদকে পরাজিত করে দ্বিতীয়বারের মতো এমপি হন তিনি।

 ১৯৯১ সালে আবু সাইয়িদ আওয়ামী লীগের থেকে নির্বাচন করে জামায়াতের আমীর নিজামীর কাছে পরাজিত হন।

১৯৯৬ সালে আবু সাইয়িদ বিজয়ী হয়ে তথ্য প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পান। ২০০১ সালে তিনি আবারো নিজামীর কাছে পরাজিত হন। তাই এবারের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ চায় আসনটি ধরে রাখতে আর বিএনপি নেতৃত্বধীন ঐক্যফ্রন্ট চায় হারানো ক্ষমতা ফিরে পেতে।

পাবনা-২ সুজানগর ও বেড়া উপজেলার একাংশ নিয়ে গঠিত। এ আসনে ভোটার রয়েছে তিন লাখ ৩৩৪ জন। এ আসনে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন পেয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আহমেদ ফিরোজ কবির। বিএনপি থেকে মনোনয়ন পেয়েছেন সাবেক এমপি এ কে এম সেলিম রেজা হাবিব।

 এ আসনে ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ থেকে এমপি নির্বাচিত হন আহমেদ তফিজ উদ্দিন। ২০০১ সালে আওয়ামী লীগ প্রার্থী মির্জা আব্দুল জলিলকে পরাজিত করেন চার দলীয় জোট প্রার্থী এ কে এম সেলিম রেজা হাবিব।

২০০৮ সালে আওয়ামী লীগ প্রার্থী এয়ার ভাইস মার্শাল (অব.) এ কে খন্দকার চার দলীয় জোট প্রার্থীকে পরাজিত করে বিজয়ী হন।

২০১৪ সালে আওয়ামী লীগ প্রার্থী আজিজুল হক আরজু বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হন। এবারের নির্বাচনে বিজয়ের মাধ্যমে আওয়ামী লীগ চায় হ্যাটট্রিক করতে। অন্যদিকে বিএনপি নেতৃত্বধীন ঐক্যফ্রন্ট আসনটি পুনরুদ্ধারে মরিয়া।

বেড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মতিউর রহমান মজনু বলেন, মহাজোটের টানা দুই মেয়াদে পাবনা জেলায় ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। এবারের নির্বাচনে জনগন ভোটের মাধ্যমে এ উন্নয়নের মূল্যায়ন করবেন।

বেড়া উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক রইজ উদ্দিন দাবি করেন, সুষ্ঠু নির্বাচন হলে এ দুটি আসনে ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থীরা বিজয়ী হবে।

সব সময় আপডেট নিউজ পেতে আমাদের সাথেই থাকুন- সবুজ বিডি ২৪

সংবাদটি শেয়ার করুন:

© All rights reserved © 2018-2019  Sabuzbd24.Com
Design & Developed BY Sabuzbd24.Com