Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes
Home / ক্রাইম নিউজ / পীরগঞ্জে হাট-বাজারগুলোতে অবৈধ ভাবে সরকারী ঘর দখলের প্রতিযোগীতা

পীরগঞ্জে হাট-বাজারগুলোতে অবৈধ ভাবে সরকারী ঘর দখলের প্রতিযোগীতা

পীরগঞ্জ (রংপুর) প্রতিনিধি:

রংপুরের ঐতিহ্যবাহী পীরগঞ্জ উপজেলায় হাট-বাজাগুলোতে সরকারী ঘর, রাস্তা বন্ধ করে ঘর দখলের প্রতিযোগীতা চলছে। দেখার কেউ নেই।

বিশেষ করে দখলের প্রতিযোগীতায় শীর্ষে চতরা হাট। বতর্মান ইজারাদার,স্থানীয় কিছু পাতি নেতার জোরে চলছে এই রমরমা বানিজ্য।

উক্ত হাটে এই ইজারাদারের বেশ কিছু অনিয়ম ও দূনির্তি সোশ্যাল মিডিয়াসহ, দৈনিক, সাপ্তাহিক, পাক্ষিক প্রতিকায় প্রকাশিত হলেও তা এখনো বন্ধ হয়নি।

হাটের রাস্তা বন্ধ করে টোলঘর নির্মান করায় স্থানীয় জনৈক ব্যক্তির লিখিত ভাবে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বরাবরে গত, ৩০/০৮/১৮ইং তারিখে অভিযোগ করেন। ১৮/০৯/১৮ইং তদকালী নির্বাহী কর্মকতা সরজমিনে তদন্ত পূর্বক প্রতিবেদন প্রদানের অনুরোধ জানান। ৩০/১০/১৮ইং সহকারী কমিশনার ভুমি সঞ্জয় কুমার মহন্ত,১৯৭০ সালের ৫,(১)এর সেকশন মোতাবেক, ৭দিনের মধ্যে অবৈধ টোল সরিয়ে নিতে নোটিশ প্রদান করেন। ২২/১১/১৮ইং ইউনিয়ন ভুমি অফিসার ঐ অবৈধ টোল ঘরটি না সরানোর কারনে উপজেলা সহকারী কমিশনার ভুমি বরাবরে পরবর্তী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য প্রতিবেদন দাখিল করেন। প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা না করে সহকারী কমিশনার ভুমি নিজেই সরজমিনে পরিদর্শন করেন এবং ২৩/০১/১৯ইং তারিখে তিনি আবারো সাত দিনের সময় দিয়ে নোটিশ প্রদান করেন। এভাবেই চলছে কালক্ষেপন। জন মনে প্রশ্ন এর শেষ কবে কে জানে। অভিযোগ কারী প্রতিনিয়ত ঘুরছে ভুমি অফিসে।

কর্মকর্তাগন হচ্ছে ,হবে, এই ভাবে বিভিন্ন অজুহাতে বিদায় দিচ্ছেন অভিযোগ কারীকে। এদিকে দখলদাররা প্রভাবশালী হওয়ায় অভিযোগ কারীকে হুমকি,ধামকিসহ বিভিন্ন প্রকার মানসিক নির্যাতন করছে এবং এ বলছে ঐ রকম কর্মকর্তা না কি তাদের পকেটে থাকে।

তার সত্যতা ও অভিযোগকারীর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, অফিস থেকে বেশ কয়েক বার ফাইল হারিয়েছে। পরে আবারো নতুন করে কাগজ পত্র দিতে হয়েছে আমাকে। দীর্ঘশাঃস ফেলে অভিযোগকারী বলেন এভাবেই কেটে গেলো প্রায় ৬টি মাস। কি হবে বুঝতে পারছিনা। গত রাতেও সরকারী সেড দখল করে টোল ঘর নির্মান করেছে দখলদাররা। আগামী ১৪২৬ বাংলা সালের ইজারা টেন্ডার দেওয়া হবে আগামী১৮/০২/১৯ইং তারিখে সরকারী সর্বনিম্ন মূল্য নির্ধারন করা হয়েছে ৩৭,৯৮,৯০২টাকা।

স্থানীয় জনতা,হাটুরেরা বলেন,এবারে সরকারী নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে অনেক কমে হবে টেন্ডার। কারন হাটে যদি জায়গা না থাকে তাহলে মানুষ কোথায় দাড়াবে,কেনা-বেচা করবে। তাই একটি মহল এই দখলদারদের দারায় দখল করে আগামী বছর যেন টেন্ডার কম হয়। সরকারী নির্ধারিত মূল্য না হওয়ায় মাসে,মাসে,অথবা হাটে, হাটে জমা আদায় করে কর্মকর্তাকে সাথে নিয়ে সরকারকে লক্ষ,লক্ষ, টাকা ফাকিঁ দিতে নিজেদের স্বার্থ হাসিলের পায়ঁতারা করছে বলে এলাকার জনসাধারন ও সচেতন মহল মনে করে”।

সব সময় আপডেট নিউজ পেতে আমাদের সাথেই থাকুন- সবুজ বিডি ২৪

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

চট্টগ্রামে স্কুলছাত্রীর হাত-পা বেঁধে ধর্ষণ

চট্রগ্রাম প্রতিনিধি: চট্টগ্রাম জেলার লোহাগাড়ায় নবম শ্রেণির এক ছাত্রীকে হাত-পা বেঁধে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে ওই ...