শনিবার , নভেম্বর 17 2018
হোম / অন্যান্য / ধর্ম / মুসলিম উম্মাহর শান্তি কামনার মধ্য দিয়ে শেষ হলো রংপুর মিনি ইজতেমা

মুসলিম উম্মাহর শান্তি কামনার মধ্য দিয়ে শেষ হলো রংপুর মিনি ইজতেমা

মমিনুল ইসলাম রিপন: মুসলিম উম্মাহর ঐক্যসহ দেশের শান্তি, অগ্রগতি ও সমৃদ্ধি কামনায় মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে রংপুরে আয়োজিত তাবলীগ জামাতের মিনি ইজতেমা। রংপুর মহানগরীর দমদমা বধ্যভূমি সংলগ্ন ঘাঘট নদীর তীরে তিনদিন ব্যাপী ইজতেমার শেষ দিন শনিবার সকাল ১১টার দিকে আল্লাহর দরবারে হাত তুলে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন ধর্মপ্রাণ কয়েক লাখ মুসল্লি। দীর্ঘ ৩৫ মিনিটের আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করেন রাজধানীর কাকরাইল জামে মজিদের খতিব মাওলানা মোহাম্মদ মোশাররফ হোসেন। এসময় মুসল্লিরা সৎ ও ন্যায়ের পথে থেকে ইসলামের সুশান্তির বাতাস বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে দিতে আল্লাহর কাছে আকুতি জানান।

এরআগে ভোর থেকেই আখেরি মোনাজাতে অংশ নিতে বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ ইজতেমা ময়দানে জড়ো থাকেন। দূর-দূরান্তের মুসল্লিরা অটোরিকসা, মোটরসাইকেল, রিকশা, বাস, ট্রাক, কাভার্ডভ্যানে করে যে যেভাবে পেরেছেন ছুটে আসেন কয়েক লাখ মুসল্লির সাথে হাত তুলে আল্লাহর দরবারে ফরিয়াদ জানাতে। সকাল ১০টার পর ইজতেমার মুল প্যান্ডেল কানায় কানায় পরিপূর্ণ হয়ে উঠে। মানুষের উপচে পড়া ¯্রােতে ঘাঘট নদীর দুই তীর, কৃষি জমি, রংপুর-ঢাকা মহাসড়কসহ আশপাশের বসত বাড়ি, ছাত্রবাস, ছাত্রীহোস্টেল ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভড়ে যায় মানুষে মানুষে। প্রচন্ড রোদে ধুলোধুসরিত ময়দানে মহান আল্লাহ্র সন্তুষ্টিতে মোনাজাতে কেউবা মস্তক অবনত করে কেউ কেউ আকাশপানে হাত উচিয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। পরে মোনাজাত শেষে মানুষের জনসমুদ্রে দীর্ঘ যানজটে তৈরি হয় বাড়ি ফেরার যুদ্ধ। আগত মুসল্লিদের যাতায়াত নিরাপদ করতে সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থানে ছিল আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরাসহ তাবলীগ জামাতের স্বেচ্ছাসেবক কর্মীরা।

মোনাজাত শেষে বাড়ি ফেরার পথে কথা হয় মমিনুল ইসলাম সাথে। তিনি জানান, এই ইজতেমার মাধ্যমে ইসলামের প্রসারের পাশাপাশি মুসলমানদের মধ্যে স¤প্রীতির বন্ধন আরও বাড়বে। তাবলিগের মুসল্লী ছাড়াও আশপাশের জেলা থেকে ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা অংশ নিয়েছেন অধিক সওয়াবের আশায়।

নগরীর কামারপাড়া এলাকা থেকে আসা আল-আমিন নামে এক তরুণ বলেন, তাবলিগ জামাতের আয়োজনে যে শৃংখলা থাকে। তা আমাকে মুগ্ধ করে। আমরা সবাই যদি ইসলামের বার্তায় এভাবে শৃংখলিতভাবে জীবন যাপন করি, তাহলে দুনিয়া ও আখেরাতে আমরা ভালো থাকব।

ইজতেমা আয়োজক কমিটির সদস্য হাফিজুর রহমান হাফিজ জানান, বিশ্ব ইজতেমার ওপর চাপ কমাতে কয়েক বছর ধরে জেলা ভিত্তিক আঞ্চলিক ইজতেমা হয়ে আসছে। এরই ধারাবাহিকতায় রংপুরে ৪র্থ বারের মতো মিনি ইজতেমা অনুষ্ঠিত হলো। গত বৃহস্পতিবার ফজরের নামাজের পর আমবয়ানের মধ্য দিয়ে রংপুর মিনি ইজতেমার কার্যক্রম শুরু হয়েছিল। এবার এখানে বয়ান করতে আসেন সৌদি আরব, চীন, মরক্কো ও রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে তাবলিগ জামাতের মুরুব্বিরা। এর আগে রংপুর মিনি ইজতেমা নগরীর কালেক্টরেট ঈদগাহ ও টার্মিনাল আরকে রোডের ফাইয়াজ স্কুল এন্ড কলেজ সংলগ্ন মাঠে অনুষ্ঠিত হলেও স্থান স্বল্পতার কারণে এবার দমদমা ধর্মদাস মোহাম্মদপুর ও ইসলামপুর এলাকায় দমদমা নদীর তীরের ৪০ একর জমির বিশাল ভূমিতে নেয়া হয়।

এখানে ১৩টি খেত্তায় রংপুর জেলা ছাড়াও বিভাগের ৭ জেলা এবং দেশের বাইরে থেকে আসা ইন্দোনেশিয়া ও ভারতের মুসল্লীরা অংশ নেন। তাবলীগ জামাতের ৪ শতাধিক স্বেচ্ছাসেবক সাথী শৃঙ্খলাসহ মেহমানের খেদমতে কাজ করছেন। এছাড়াও নিরাপত্বার জন্য র‌্যাব, পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের সদস্যদের পাশাপাশি সাদা পোষাকে ছিল আইনশৃংখলা বাহিনীর তিন স্তরের নিরপত্বা বলয়। ছিলো পুলিশ কন্ট্রোল রুম। ইজতেমা মাঠকে ঘিরে বিভিন্ন ধরনের প্রায় আড়াই শতাধিক দোকানপাটে তিন দিনে কয়েক লক্ষ টাকার ব্যবসা হয়েছে।

 

সব সময় আপডেট নিউজ পেতে আমাদের সাথেই থাকুন- সবুজ বিডি ২৪

জনপ্রিয় পোষ্ট আপনার ভাল লাগতে পারে দেখুন “সবুজ বিডি ২৪“ এর সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।

সরেজমিন যেমন চলছে পীরগাছার দেবী চৌধুরাণী বয়স্ক পূনর্বাসন কেন্দ্র ।

বখতিয়ার রহমান : রংপুরের পীরগাছা উপজেলার জনসেবা মুলক একটি প্রতিষ্ঠান দেবী চৌধুরাণী বয়স্ক পুনর্বাসন কেন্দ্র …

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।